North America Bengali Conference 2014

Srijato

Srijato

Once again, the North America Bengali Conference (NABC) or Bongo Sammelan, is welcoming the Bengalis of the world to get together for a fun filled weekend.  This time, Orlando, Florida is hosting the NABC. Like previous years, star performers from overseas will be gracing the Hyatt Orlando stages to entertain the attendees from all over the country. I won’t get into those details since you can find all that information on NABC website. Rather, I’d like to talk to you about some of the events which receive less attention from the audience as well as the organizers. Events for which you’ll only find some sketchy details on the website, if any at all.

The first event I’d like to draw your attention to, is the Literary Seminar (as I am responsible in arranging this event). We all appreciate that literature is the primary cornerstone of any culture, and we, the Bengalis, are proud to have a great literary legacy. But in NABC these days, the literary events  happen quietly in one of the hidden meeting rooms. You’d be lucky if you can find the room. But interested people do find their way. A total of eight hours (over the two days) would be dedicated to the literary events which consists of seminars, panel discussion, poetry and prose reading sessions. This year, we have two accomplished poets from Kolkata, Srijato and Binayak Bandopadhyay.  They, along with some of our local authors, will talk about the creative process. How an inspiration gets transformed to a poem or prose, will be the topic of discussion. A panel discussion, featuring some of the most active people involved in promoting Bengali literature in USA and UK, will talk about their experiences and their challenges. We will also have poetry reading sessions, and a special Flash Fiction (or micro-story) session. So, please drop by and spend some quality time with Bengali literature.  Continue reading

Mahabharata : Episode 4 – The Conflict Begins

Young Bheema fight with the Nagas

Young Bheema fight with the Nagas

The stories of Mahabharata continues. The conflict between the Pandava brothers and the Kaurava brothers began at an early age.  In this episode we learn of the first attempt by the Kaurava brothers, primarily Duryodhona and Duhsashana, to eliminate their arch rival Bheema. The story gives us a glimpse of the extent to which the Kauravas could go to achieve their goals. Enjoy and do not forget to give your feedback.

(Note: You can also subscribe to this series (for free) as podcast on iTunes store or any other podcast aggregator. Just search for Mahabharata and Bhawmik.)

Mahabharata: Episode 3 – Birth of the Kuru Princes

Pandu Hunts the Deer Couple.

Pandu Hunts the Deer Couple.

The stories of Mahabharata continues. In this episode we learn about the birth of the Kuru princes, the Pandavas and the Kauravas. We also learn about the tragic death of King Pandu caused by a curse from the dying sage Kindama.

Audio engineering and sound design by Avi Ziv.

Jatra – A Bengali Tradition

Noti Binodini

Noti Binodini

I grew up in a small campus town where entertainment options were quite limited.  We did have some limited opportunities to watch cinema during the weekends, but that was rare. So we all waited for the Jatra companies to visit our town after the Puja’s with their exciting performances. Months before the show, monochrome or dual tone lithographic posters printed on thin paper covered the walls, lamp posts, even tree trunks all around the town. Publicists of the show organizers announced the details of the upcoming Jatra festival using a battery powered portable PA system mounted on a cycle rickshaw and threw dozens of colorful handbills in the air.  Weeks before the festival,  walls made of corrugated tin enclosed a large football (soccer) field. The top covered with tarp supported by wooden poles. Inside, in the center of the field, was a square stage built on wooden platforms where the actors performed.  The actors entered and exited through a ramp leading from the dressing rooms to the stage. On either side of the stage, at a slightly lower level,  sat the musicians who played live music with harmonium, trumpet, cymbals, tabla, dholak, flute etc. The contents of the plays ranged from mythological to historical to social issues.   Continue reading

Mahabharata : The Greatest Story Ever Told – Episode 2

Listen to the second episode of “The Mahabharata”. In this episode, we learn about the plight of Amba, and the story of the birth of Pandu, Dhritarashtra and Vidur.

In Conversation with a Director

Suman Mukhopadhyay

Suman Mukhopadhyay

Recently Suman Mukhopadhyay was in town. He had come to New York to attend the screening of his latest film “Sesher Kabita” (The Last Poem) which is yet to release commercially. Mriitika of New Jersey (a non profit organization dedicated to the promotion of Indian culture and heritage in USA), led by Dhriti Bagchi, arranged for a screening of the film at the Marlboro Library. The show started at 5:45pm on a weekday afternoon (Monday to be precise), but the film managed to attract a full house. I went to the film with lot of apprehension.  Making a film from a classic text, and that too one written by Rabindranath Tagore, is no easy task.  ”Sesher Kabita” is one of the most read novels of Tagore and each of us have created in us our own mental movie of this romantic text. And this movie often conflicts with the one projected on the screen. But for me, the film was a pleasant surprise. Suman managed to capture the romanticism in a beautifully orchestrated series or images and moments that keeps you glued to the seat just to enjoy the poetry being projected.

Later, during the Q&A, Suman informed us that the film was commissioned to him by the Government of India to commemorate Rabindranath Tagore’s 150th anniversary in 2011. He also answered several question on the film, most of which dealt with the artistic choices he had to make in order to make the film. Later that evening, I had  the opportunity to sit with him one on one and talk about his inspiration for creating art, be it theatre or a film. Listen to the recording of the conversation given below or download the podcast on your mobile device and listen at your leisure. I am sure, all film and theatre lovers will find his views quite inspiring.

Mahabharata : The Greatest Story Ever Told – Episode 1

Mahabharata - Vyasa and Ganesha

Mahabharata - Vyasa the story teller and Ganesha the scribe

I think I am not exaggerating when I say that the Mahabharata is the greatest story ever told.  The story of the Kuru dynasty has inspired and enlivened not only the Indians for generations, but the entire humanity. Writers, performers, story tellers, have over the ages,  told us the story several times in different forms. Still it remains ever fresh to us. However, the western world has largely ignored this great epic.  Except for Peter Brook’s theatrical attempt (which was later modified to a television miniseries), I am not aware of any other major attempt. The text of the Mahabharata has been translated to English by many writers, but still they failed to excite the western performers.

Recently, as a part of the EBC Radio Drama Club, I have embarked upon a project to retell the stories of the Mahabharata in my own humble way in English. I hope you, and especially our children, listen to these stories and like them.  If you like them, then join us on the radio (EBC Radio -1170AM in New Jersey, or http://ebcmusic.com, or on your smartphone EBC Radio app) or listen to the recordings here or on iTunes Podcast store (free) on nynjbengali.com channel. This episode (1) was recorded directly from the live broadcast.

 

Why a Play like “Palok”?

Palok

Palok

Over the years, I have tried to capture the conflicts and struggles of our expatriate lives in America through my plays. And one of the greatest struggles we face is to rear our children in this foreign land. In many of my plays,  the relationship (and conflicts) between parents with their children has come up in various forms – sometimes intentionally and sometimes unintentionally. In “Ron” it was the conflict of ideals and loyalty between the two generations. In “Satyameva” the longing for parenthood of a lonely father was the key issue. In “Taconic Parkway” the struggle to cope with the loss of a teenage daughter created the drama.  In “Cassandra…” the empty nesters hope and wish to get back to their child drove the play. However, the issue of parenting in its most primitive sense was never explored before until “Palok”.  The challenges of rearing a child during the early formative years is the most trying period for any parent. It tests their patience, their resolve and their sense of responsibility to the maximum, especially in a country where you don’t have the support system of your immediate family.  And during those difficult moments, they sometimes lose control of their senses and do things to their children which borders on “criminal” behavior. Continue reading

A Conversation With Chandan Sen

Chandan Sen

Chandan Sen

Recently, at the EBC Radio Drama Club show, I had the opportunity to chat with the noted theatre personality of Kolkata, Chandan Sen.  Chandan Sen is quite well known to the theatre loving Bengali crowd of North America. He has not only directed and performed in plays in USA, but he has also been involved as a technical consultant to several North America Bengali Conferences. In this conversation Chandan talks about how he got into theatre, his views about the current status of theatre in West Bengal and many other things. I hope you enjoy the discussion.

“যদিদং”

“যদিদং”
নাটক, নির্দেশনা: সোহন বন্দোপাধ্যায়
প্রযোজনা: নট-রঙ্গ

ফেসবুকের মাধ্যমে জানতে পারলাম স্টার থিয়েটারে জি-বাংলা নাট্য উত্সবের আয়োজন করেছে। । বাছা বাছা কয়েকটি নাটক মঞ্চস্থ হবে সেই উত্সবে। অনুষ্ঠানসূচীতে দেখলাম সোহন বন্দোপাধ্যায়ের “যদিদং” নাটকটিও রয়েছে। “যদিদং” নাটকটি সম্পর্কে অনেক শুনেছি, পড়েছি। তাই অনেকদিন ধরেই ইচ্ছে ছিল নাটকটি দেখার। সুতরাং সুযোগ ছাড়লাম না, বারাসাত থেকে গাড়ি নিয়ে যথা সময়ে পৌঁছে গেলাম ঐতিহাসিক স্টার থিয়েটারে। ভয় ছিল টিকিট পাবো কিনা, কারণ শুনেছিলাম নাটকটি খুবই জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। কিন্তু হলে গিয়ে দেখি সাকুল্যে জনা পঞ্চাশেক দর্শক, তার মধ্যে বেশ কিছু নিমন্ত্রিত। মাত্র চল্লিশ টাকা প্রবেশমূল্য, তাও দর্শক নেই। পরে শুনলাম এই উত্সবের যথেষ্ট প্রচার হয়নি, তাই কলকাতার বেশির ভাগ থিয়েটার প্রেমী দর্শক জানেনই না, এত সুলভে নাটক দেখার সুযোগ করে দিয়েছে জি-বাংলা।

“যদিদং” -কে হয়ত একটি আধুনিক প্রহসন বলা যেতে পারে, সুরিয়ালিস্ট কমেডিও বলা যেতে পারে। বিবাহ নামক প্রতিষ্ঠানটিকে যে সময়ে আমরা ক্রমাগত চ্যালেঞ্জ করে চলেছি, আঘাতের পর আঘাত করে তাকে ধুলিস্যাত করে ফেলতে চাইছি, ঠিক সেই সময়ে দাড়িয়েই সোহনের এই নাটক আমাদের শেখায় যে, বিবাহিত জীবন কেবল মাত্র এক আইনি বন্ধন নয়, সামাজিক রীতি নয়, আরও বেশি কিছু। এমন কিছু, যা ইচ্ছে করলেই ছিড়ে ফেলা যায় না, কোর্টের ডিক্রি অনুসারে ভাগ করা যায় না, কেটে ভাগাভাগি করা যায় না। সেই কিছু-র নাম হয়ত ভালবাসা, হয়ত সমঝোতা, হয়ত সহনশীলতা, কিম্বা হয়ত স্রেফ “মনুর মা”!

আমার এক প্রিয়জন একটা কথা বলতেন, “বিয়ের আগে যে মনোরমা, বিয়ের কিছুদিন বাদেই সে হয়ে যায় মনোর মা!” কিন্তু সেই “মনোর মা” বা “মনুর মা”-রাই যে সংসার টিকিয়ে রাখার প্রধান উপাদান, সেটা আমরা অনেক সময়েই ভুলে যাই। যদিদং নাটকের দুই চরিত্র, এক তরুণ দম্পতি (সোহন বন্দোপাধ্যায় ও মৌসুমী সেনগুপ্ত), সেই কথাটাই ভুলে গিয়েছিল। সাত বছর বিবাহিত জীবন কাটাবার পর তারা স্থির করে আর এই ভাবে থাকা তাদের পক্ষে সম্ভব নয়। তাদের সমস্থ স্থাবর সম্পত্তি তারা সমান দুই ভাগে ভাগ করে নেয়। চেয়ার টেবিল, আসবাব, ফ্রিজ – সমস্ত কিছুই করাত দিয়ে কেটে দু টুকরো করে ভাগ করে নেয়। ঘরের মধ্যে রেখা টেনে দুজনের জায়গা সমান করে আলাদা করে নেয়। কিন্তু তার পরেও তাদের মনে হয়, কিছু একটা রয়ে যাচ্ছে যা তারা কিছুতেই ভাগ করতে পারছে না। তাই তারা ধরে বেঁধে নিয়ে আসে এক নকল উকিল পঞ্চানন সাঁতরা-কে (দেবসঙ্কর হালদার), যিনি আবার পার্ট টাইম তান্ত্রিক-এর প্রক্সিও দিয়ে থাকেন। কিন্তু পঞ্চানন-বাবুর কাছে এর কোনো আইনি সমাধান বা তান্ত্রিক জড়ি-বুটি নেই। তার কেবল রয়েছে মনুর-মা, যে তার জন্য বিউলি ডাল আর ধনে পাতার বড়া রেঁধে অপেক্ষা করে থাকে। আর শেষ মেষ এই মনুর-মাই পারেন এই যুযুধান দম্পতিকে ফের মিলিয়ে দিতে, যদিও সেই কাজের জন্য তাকে এক বারও মঞ্চে আসতে হয় না।
আজকের আধুনিকা শিক্ষিতা নারী এই নাটক দেখে হয়ত প্রতিবাদ করতে পারেন, ঘরে বসে স্বামীর জন্য বিউলি ডাল আর ধনে পাতার বড়া রাঁধতে রাজি নাও হতে পারেন। কিন্তু এখানেই হবে ভুল, কারণ “মনুর মা” তো কোন রক্ত মাংসের মানুষ নয়, “মনুর মা” একটি abstract concept ! একটা ভাবনা, যা স্বামী স্ত্রী দুজনের মনেই বাস করে, যাকে ভাগ করা যায় না। যদিদং দেখে আমি অন্ততঃ এই টুকুই বুঝেছি। এবং আমার বোঝাটা যদি ঠিক হয়ে থাকে, তাহলে বলব নাট্যকার নির্দেশক সোহন বন্দোপাধ্যায় সেই কাজে সম্পূর্ণ সার্থক। আর এই কঠিন বিষয় বস্তুকে তিনি পেশ করেছেন অসাধারণ হিউমার-এর মোড়কে।

অভিনয়ে দেবশঙ্কর আবার প্রমান করলেন, তিনি একাই একশ। প্রায় গোটা নাটক টাকে তিনিই বয়ে নিয়ে গেলেন। অবশ্য নাট্যকার তাকে যথেষ্ট সাহায্য করেছেন। তুলনায় অন্য চরিত্র দুজনের প্রতি হয়ত একটু অবহেলাই করেছেন। তাদের দাম্পত্য সংকটটা খুব একটা জোরালো হয়ে প্রস্ফুটিত হলো না। কেবলই অহং বোধ, ইগো, অথবা আপোষহীনতাই কি কোনো দম্পতিকে বিচ্ছেদের দোরগোড়ায় নিয়ে যেতে পারে? আর কোন কারণ, কোনো অপ্রতিরোধ্য চাপ কি থাকতে পারে না? তাদের একটা গল্পও তো থাকতে পারে?

স্বল্প চরিত্রের নাটক কখনো কখনো নির্দেশককে একটু সমস্যায় ফেলে। স্টেজ কম্পোজিশনে বৈচিত্র আনা অনেক সময় কঠিন হয়ে পরে। যদিদং নাটকে চরিত্র সংখ্যা মাত্র তিন, এবং তারা সব সময় মঞ্চে থাকেন। সমস্যা আরো গভীর হয় যখন গল্পের খাতিরে তারা মঞ্চে কেবল সীমিত অঞ্চলের মধ্যে থাকতে বাধ্য হন। ফলে দীর্ঘ ১০০ মিনিটের নাটকে, মঞ্চের ছবিটা প্রায় একই থেকে যায়, যা দৃশ্যত একটু ক্লান্তিকর ঠেকে বৈকি। সংলাপ, অভিনয়, সঙ্গীত, এ সবই ব্যবহার করা হয়েছে এই বাধা কে অতিক্রম করতে, কিন্তু এতো আর শ্রুতি নাটক নয়। দর্শক তো নাটক “দেখতেই” এসেছেন। মঞ্চ নিয়ে আর একটু ভাবনা চিন্তা করার সুযোগ ছিল। যেমন, কাটা ফ্রিজ, আসবাব, ইত্যাদির ছোট ছোট ছবির মালা না করে, যদি প্রমান সাইজের কাট আউট ব্যবহার করা হত, খুব একটা মন্দ হত না। অভিনেতারা সেগুলি ব্যবহার করে মঞ্চে কিছুটা বৈচিত্র আনতে পারতেন। আর একটা কথা – আধ খানা চেয়ার কিন্তু দাঁড়িয়ে থাকতে পারে না, ঠিক যেমন ভেঙ্গে যাওয়া সংসারে একা স্বামী বা স্ত্রী জীবনের ভার বহন করতে পারে না।

নট-রঙ্গ ও সোহন কে ধন্যবাদ একটি ভালো প্রযোজনা উপহার দেবার জন্য। পরবর্তী প্রযোজনা “মন মানুষের” জন্য সাগ্রহে অপেক্ষা করে রইলাম।